প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২১st এপ্রিল ২০১৯

বিশেষ এলাকার জন্য উন্নয়ন সহায়তা (পার্বত্য চট্টগ্রাম ব্যতীত)

'বিশেষ এলাকার জন্য উন্নয়ন সহায়তা (পার্বত্য চট্রগ্রাম ব্যতীত)’ শীর্ষক কর্মসূচির আওতায় গৃহীত

উন্নয়ন কাজের তথ্যাদি

 

  • আদমশুমারী ২০১১ অনুযায়ী সমতলে বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সংখ্যা ১৫ লক্ষ। এর মধ্যে পুরুষ ৭৯৭৪৭৭ জন এবং মহিলা ৭৮৮৬৬৪ জন। সমতলের মোট ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর ৫০.২৮% পুরুষ এবং মহিলা ৪৯.৭২%। ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর মোট খানার সংখ্যা ৩৫৬১৭৫টি।

 

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় হতে সমতলের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের আর্থ সামাজিক উন্নয়নের জন্য 'বিশেষ এলাকার জন্য উন্নয়ন সহায়তা (পার্বত্য চট্রগ্রাম ব্যতীত)' শীর্ষক কর্মসূচির কার্যক্রম ১৯৯৬ সাল হতে শুরু হয়ে অদ্যাবধি চলমান রয়েছে। কর্মসূচিটি সরকারী অর্থে বাস্তবায়িত হচ্ছে।

 

বিগত ৫টি অর্থ বছরে (২০১৩-২০১৪ হতে ২০১৭-২০১৮) কর্মসূচির অনুকূলে মোট বরাদ্দ ছিল ৮০.০০ কোটি টাকা। কর্মসূচির আওতায় সুবিধাভোগীরা অত্যন্ত প্রান্তিক পর্যায়ের পল্লী অঞ্চলের মানুষ। তাদের জন্য কর্মসূচির আওতায় গৃহীত উন্নয়নমূলক কার্যক্রমসমূহ নিম্নরূপ :

 

  • বিগত ৫টি অর্র্থ বছরে ৬০.০০ কোটি টাকা ব্যয়ে ২৮০টি উপজেলায় মোট ৫০০টি আয়বর্ধনমূলক প্রকল্প যেমনঃ কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, তাঁত প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, সেলাই প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, পরিবহন প্রকল্প, মৎস্য/চিংড়ি চাষ, গরু পালন, রিক্সা-ভ্যান, সিএনজি/অটোরিক্সা, পানের বরজ, জুতা তৈরী, বাঁশ ও বেতের সামগ্রী ইত্যাদি বাস্তবায়ন করা হয়েছে।

 

  • কর্মসূচির আওতায় প্রতি অর্থ বছরে সংশ্লিষ্ট সকল উপজেলায় শিক্ষা বৃত্তি প্রদান করা হয়। ফলে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীভুক্ত ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে শিক্ষার হার বৃদ্ধি পাচ্ছে যা সামগ্রিক শিক্ষার হার বৃদ্ধিতে সহায়ক ভূমিকা রাখছে। বিগত ৫টি অর্থ বছরে ২৮০ টি উপজেলায় মোট ২৫.০০ কোটি টাকার  শিক্ষা বৃত্তি প্রদান করা হয়েছে।

 

  • প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় হতে উচ্চ শিক্ষায় (সরকারি, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল, ইঞ্জিনিয়ারিং) অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কর্তৃক এককালীন বৃত্তি প্রদান করা হয়। গত ৫টি অর্থ বছরে উচ্চ শিক্ষায় অধ্যয়নরত ২০৯৬ জন শিক্ষার্থীকে এককালীন ৪.৮৮২৫ কোটি টাকার বৃত্তি প্রদান করা হয়েছে।

 

  • উত্তরবঙ্গের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের দক্ষ মানব সম্পদ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য সিরাজগঞ্জ জেলার রায়গঞ্জ উপজেলায় ৪.০০ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি ন্যাশনাল স্কিলড ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউট নির্মাণ করা হয়েছে। উক্ত কেন্দ্রে সফলভাবে বিভিন্ন ট্রেডে প্রশিক্ষণ চলমান রয়েছে।

 

  • কমলগঞ্জ ও রায়গঞ্জের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাতায়াতের সুবিধার জন্য ২টি মিনিবাস সরবরাহ করা হয়েছে।

 

  • দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে একটি বড় আকারের তাঁত প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। উক্ত কেন্দ্র হতে প্রস্তুতকৃত তাঁতের শাড়ি/লুঙ্গি দেশের বিভিন্ন বাজারে সরবরাহ করা হচ্ছে।

 

  • কর্মসূচির আওতায় অন্যান্য বরাদ্দকৃত খাতগুলো হলো- স্বাস্থ্য খাত, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান সংস্কার/নির্মাণ, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের জন্য বিদ্যালয় নির্মাণ/ আসবাবপত্র সরবরাহ, সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপন, কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণ/ সংস্কার ইত্যাদি।

 

  • গত ৫টি অর্থ বছরে গৃহীত কার্যক্রমের মাধ্যমে প্রায় ১ লক্ষ ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন করা হয়েছে।

Share with :

Facebook Facebook